এখন পড়ছেন
হোম > বিনোদন > অমরীশ পুরি নন, মিস্টার ইন্ডিয়াতে মোগাম্বো-এর জন্য প্রথমে অফার করা হয়েছিল এই অভিনেতাকে

অমরীশ পুরি নন, মিস্টার ইন্ডিয়াতে মোগাম্বো-এর জন্য প্রথমে অফার করা হয়েছিল এই অভিনেতাকে

১০০ বছর পেরিয়ে ভারতীয় চলচ্চিত্র শিল্প আজ ভারত ছাড়াও আন্তর্জাতিক বাজারেও যথেষ্ট প্রভাবশালী। আর সেই বলিউডের ছবিতে ভিলেনদের একটা গুরুত্বপূর্ণ জায়গা রয়েছে। সেই অর্থে বলতে গেলে নেগেটিভ চরিত্রে বা ভিলেনের চরিত্রে অভিনয় করে যিনি নিজ দক্ষতায় সেরা ভিলেনের জায়গাটা তৈরি করেছিলেন তিনিহলেন অমরিশ পুরী।

চার শতাধিক ছবিতে তিনি অভিনয় করেছেন। গুণী এই অভিনেতার জন্মদিনে অনুপম খের জানালেন যে বিখ্যাত ‘মোগাম্বোর’ চরিত্র করে অমরেশ পুরী সমস্ত লাইমলাইট তাঁর দিকে টেনে নিয়েছিলেন তা প্রথমে অফার করা হয়েছিল তাঁকেই। তবে তাঁর ব‍্যস্ত সিডিউলের জন‍্য তিনি তা করতে না পারলে ১৯৮৭ সালে শেখর কাপুর পরিচালিত সেই ছবিতে এই চরিত্রটি অমরেশ পুরী করেন এবং বাকিটা তো ইতিহাস!

অমরেশ পুরী বেঁচে থাকলে বর্তমানে তাঁর বয়স হতো ৮৭। ২০০৫ সালে ৭২ বছর বয়সে তিনি প্রয়াত হন। তাঁর আসল নাম অমরেশলাল পুরি। ১৯৩২ সালের ২২ জুন ভারতের তৎকালীন পাঞ্জাবের জলন্ধর জেলার তেহশিল গ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তিন ভাই ও এক বোনের পর জন্ম হয় তাঁর। ১৯৫৭ সালে অমরেশ পুরি ঊর্মিলা দিবাকরকে বিয়ে করেন। তাঁদের দুই সন্তান – মেয়ে নম্রতা আর ছেলে রাজিব। অমরেশ পুরির চার নাতি-নাতনি আছে, ইতিমধ্যে তাঁর স্ত্রীও প্রয়াত হয়েছেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

‘মিস্টার ইন্ডিয়া’ ছবিতে ‘মোগাম্বো’ চরিত্রে অসাধারণ অভিনয় করেছিলেন অমরেশ পুরি। তবে তাঁর অভিনয় জীবনের শুরুটা ছিল মঞ্চ নাটকে। অমরেশ পুরির বড় দুই ভাই চমন পুরি আর মদন পুরি ছিলেন ষাটের দশকের প্রতিষ্ঠিত অভিনেতা। পড়াশোনা শেষ করে অমরেশ পুরি মুম্বই চলে আসেন নায়ক হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে। তবে, প্রথম অডিশনেই ব্যর্থ হন, জীবিকা উপার্জনের জন্য এক ইনস্যুরেন্স কোম্পানির চাকরি নেন।

পরে পৃথ্বী থিয়েটারে কর্মী হিসেবে যোগ দেন। বিখ্যাত নাট্যকার সত্যদেব দুবের অনেক নাটকে অভিনয় করে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। ১৯৭৯ সালে অর্জন করেন সংগীত-নাটক একাডেমি অ্যাওয়ার্ড। বড়পর্দায় প্রথম শুরুটা হয়েছিল মারাঠি চলচ্চিত্রে – ‘শান্তাতা! কোর্ট চালু আহে’ ছবিতে তিনি রেলস্টেশনের এক অন্ধ ভিখারির ভূমিকায় অভিনয় করেন।

তাঁর প্রথম হিন্দি সিনেমা ‘রেশমা অউর শেরা’। কিন্তু তাঁর প্রথম মুক্তি পাওয়া ছবি ‘প্রেম পূজারি’ (১৯৭০)। ‘রেশমা অউর শেরা’ মুক্তি পায় তার এক বছর পর, ১৯৭১ সালে। পরে কেবল হিন্দি নয়, মারাঠি, কানাড়া, তামিল, তেলেগু, মালয়ালম ও পাঞ্জাবি সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি। দীর্ঘ ক্যারিয়ারে চার শতাধিক সিনেমায় অভিনয় করেন তিনি। তবে, তাঁর অভিনয় জীবনের মাইলস্টোন হয়ে রয়ে গিয়েছে ‘মোগাম্বো’ চরিত্রটি – যা নিয়ে নতুন তথ্য সামনে নিয়ে এলেন আরেক কিংবদন্তি অভিনেতা অনুপম খের।

Top
error: Content is protected !!