এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম

ছাড়ছেন না হুঙ্কার, এড়িয়ে চলছেন সংবাদমাধ্যমকে, দিদির “কেষ্টা”র হাবভাবে বিজেপি যোগের জল্পনা, কি বললেন অনুব্রত

একসময় চড়াম চড়াম ঢাক, গুড় বাতাসা এবং নকুলদানার দাওয়াই দিয়ে খবরের শিরোনামে আসতে দেখা গেছে তাকে। কিন্তু লোকসভা ভোটে দলের ভরাডুবির পর সেই বীরভূম জেলার "কুকথার স্টার পারফরমার" বলে পরিচিত অনুব্রত মন্ডলের হম্বিতম্বি তেমনভাবে চোখে পড়ছে না কারোরই। একসময় যিনি বিরোধী নেতাদের উদ্দেশ্যে চোখ রাঙিয়ে ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করতেন এবং তাকে কেন্দ্র

‘কাটমানির’ ভাগ পান তৃণমূলের উপরতলাও? বিস্ফোরক অভিযোগ দলীয় সাংসদের

কাউন্সিলরদের বৈঠকে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব‍্যানার্জীর 'কাটমানি ফেরত' মন্তব‍্যের পর উত্তেজনা ছড়িয়েছে রাজ‍্যের সব জায়গায়। এই মন্তব‍্যের পর থেকে রাজ‍্যের বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূলের জনপ্রতিনিধিরা সাধারণ মানুষের ক্ষোভের মুখে পড়ছেন। সরকারি টাকা আত্মসাৎকে কেন্দ্র ক‍রে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে বীরভূম, মালদা। আর এবার, বৃহস্পতিবার এই উত্তাপের আগুনে বিতর্কের ঘি ঢাললেন বীরভূমের সাংসদ শতাব্দী

কাটমানি ফেরত চাওয়াতে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে রণক্ষেত্র অনুব্রতর গড়, চলল বোমা ও গুলি

ইঙ্গিত পাওয়া গেছিল কাউন্সিলরদের সঙ্গে মুখ‍্যমন্ত্রীর সভায়। গত মঙ্গলবার কলকাতার নজরুল মঞ্চ থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তোলাবাজি রুখতে কড়া বার্তা দেন। দলীয় প্রতিনিধিদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন সরকারি প্রকল্পের টাকা থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের যারা কাটমানি নিয়েছেন, সেই টাকা ফেরত দিতে হবে। এর পর থেকেই জেলায় জেলায় ছোটো-মাঝারি তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে শুরু হয়েছে বিক্ষোভ।

নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহদের উপস্থিতিতেই শপথবাক্য পাঠের অনিয়ম নিয়ে সোচ্চার অধীর চৌধুরী

অনেকে বলেন, এবারের লোকসভা নির্বাচনটি ধর্মের ভিত্তিতে হয়েছে। তবে নির্বাচনে যাই হোক না কেন, দ্বিতীয় ইনিংসে ফের কেন্দ্রে মোদি সরকার ক্ষমতায় আসলে গত দুদিন ধরে চলা সংসদের অধিবেশন যেন ধর্মযুদ্ধে পরিণত হল। যেখানে শপথ বাক্যর বাইরে একটি শব্দও প্রয়োগ করা যায় না, সেখানে সমস্ত নিয়মকে ভঙ্গ করে শাসকদলের নির্বাচিত প্রতিনিধিরা

দিল্লিতে পদে বসতেই তৃণমূল নিয়ে বড়সড় সিদ্ধান্ত জানালেন অধীর, জল্পনা তুঙ্গে

প্রতিটি রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে আক্রমণ শানিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি তথা বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী।সারাদেশে বিজেপি বিরোধিতায় সমস্ত বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো এক হলেও বাংলায় কেন সেই বিজেপি বিরোধী কংগ্রেসের নেতারা তাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হচ্ছে, তা নিয়ে সেই অধীরবাবুর বিরুদ্ধে প্রশ্ন তুলতে দেখা

দলনেত্রীর ডাকা বৈঠকে গরহাজির দিদির ভাই কেস্টার গড়ের কাউন্সিলররা, জোর শোরগোল রাজ্যে

বীরভূম তৃণমূলের শক্ত ঘাঁটি বলে পরিচিত। এখানকার দাপুটে নেতা অনুব্রত মণ্ডলের দাপটে বাঘে গরুতে কার্যত এক ঘাটে জল খায় বলে দীর্ঘদিন ধরেই অভিযোগ তোলেন বিরোধীরা। কিন্তু এবার লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলে রাজ্যে তৃণমূলের ভরাডুবি হতে না হতেই সেই বীরভূমেও গেরুয়া রঙের ছোঁয়া লাগতে শুরু করল। আর এরই মাঝে এবার গতকাল নজরুল

দলবদল নিয়ে বিজেপি-অনুব্রতর জোর চাপানউতোর, তীব্র চাঞ্চল্য রাজ্যে

লোকসভা নির্বাচনে সারা রাজ্যে যেমন তৃণমূলের আসন কমেছে, ঠিক তেমনই বীরভূম জেলার দুটি লোকসভা আসন তৃনমুল দখল করলেও একাধিক পঞ্চায়েত ও পৌরসভায় তাদের খারাপ ফলাফল অস্বস্তিতে ফেলেছে শাসক শিবিরের নেতাদের। আর লোকসভা নির্বাচনে তৃনমূলের খারাপ ফলাফলের পরই শাসকদল ভাঙতে শুরু করে। খোদ অনুব্রত মণ্ডলের গড়ে দলের এই ভাঙ্গনে হতচকিত হয়ে যায়

রাহুলের জায়গা কেড়ে বড়সড় পদে বসলেন অধীর রঞ্জন চৌধুরী

লোকসভা ভোট মিতে গেছে অনেক কদিনই হলো। কিন্তু কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারছিল না যে লোকসভায় কংগ্রেস পরিষদীয় দলের নেতা হবেন কে? অনেকে ভেবেছিলেন রাহুল গান্ধীকেই সেই পদের জন্য মনোনীত করা হবে আবার উঠে এসেছিলো অধীর চৌধুরীর নামও। আর আজ রাহুল গান্ধী নন, লোকসভায় কংগ্রেস পরিষদীয় দলের নেতা মনোনীত

এবার মুর্শিদাবাদেও ঘাসফুল শিবিরকে ধুয়ে মুছে সাফ করে বড় জয় পেতে শুরু করল গেরুয়া শিবির

একটা প্রচলিত ধারণা হল - বিজেপি হিন্দুত্ববাদী দল, ফলে সংখ্যালঘু মানুষের সমর্থন বোধহয় বিজেপির বিরুদ্ধেই যাবে সবসময়। সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে বাংলা থেকে দুর্দান্ত ফল করলেও, সংখ্যালঘু মানুষ এককাট্টা হয়ে নিজেদের ভোট তৃণমূলকে দিয়েছেন বলেই মনে করা হচ্ছে। কিন্তু, সেই পরিসংখ্যানে বোধহয় এবার পরিবর্তন আনার সময় হয়েছে। কেননা বাংলায় অন্যতম সংখ্যালঘু অধ্যুষিত

মালদায় সংখ্যালঘু ভোটব্যাংকে ভাঙ্গন! বিজেপিতে যোগদান ৫০০এর বেশি!

কংগ্রেসের শক্তঘাঁটি মালদায় এবারের লোকসভা নির্বাচনে গোটা রাজ্যের মত মালদাতেও গেরুয়া ঝড় অব্যাহত।লোকসভা ভোটের পরও বিজেপিতে যোগ দেওয়ার প্রবণতা বেড়েছে মালদায়। এদিন বিজেপির মালদা সদর দপ্তরে এক যোগদান সভায় উপস্থিত ছিলেন মালদা উত্তর কেন্দ্রের নবনির্বাচিত সাংসদ খগেন মুর্মু,জেলা সম্পাদক সঞ্জিত মিশ্র।ওই যোগদান সভায় মালতিপুর বিধানসভা কেন্দ্রের বিভিন্ন দল থেকে প্রায় ৫০০কর্মী

Top
error: Content is protected !!