এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বেতন বৃদ্ধির নামে শিক্ষাবন্ধুদের কার্যত ভাঁওতা দিচ্ছে রাজ্য সরকার এই অভিযোগে বড়সড় সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে শিক্ষাবন্ধুরা

বেতন বৃদ্ধির নামে শিক্ষাবন্ধুদের কার্যত ভাঁওতা দিচ্ছে রাজ্য সরকার এই অভিযোগে বড়সড় সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে শিক্ষাবন্ধুরা

বেতন বৃদ্ধির দাবীতে একাধিকবার রাজ্যসরকারের বিরুদ্ধে পথে নেমেছে শিক্ষাবন্ধু ঐক্যমঞ্চ। দফায় দফায় এই ইস্যুতে প্রশাসনের বিরুদ্ধে ধর্মঘট মিছিল করার পর সম্প্রতি রাজ্য সরকার কথা দিয়েছিল রজ্যের শিক্ষাবন্ধু ও সর্বশিক্ষা অভিযানের সঙ্গে যুক্তদের বেতন বাড়াবে। কিন্তু তা কার্যকর হওয়ার আগেই ফের রাজ্যসরকারের বিরুদ্ধে বঞ্চনা এবং দ্বিচারিতার অভিযোগ তুলে এবার রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর দ্বারস্থ হওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন রাজ্যের শিক্ষাবন্ধুরা।

আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি দিল্লিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে দেখা করতে যাবেন তাঁরা। শিক্ষাবন্ধু ঐক্য মঞ্চের রাজ্য সহসভাপতি নন্দদুলাল দাস জানালেন, “বেতন বৃদ্ধির নামে শিক্ষাবন্ধুদের কার্যত ভাঁওতা দিচ্ছে রাজ্য সরকার। ৭ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করে আমরা আমাদের কথা তুলে ধরতে চাই।”

দিন দুয়েক আগেই রাজ্যের শিক্ষাবন্ধু এবং সর্বশিক্ষা মিশনের সঙ্গে যুক্ত কর্মীদের বেতন বৃদ্ধি কথা নবান্নে বসেই ঘোষণা করেছিলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বলা হয়েছিল,শিক্ষাবন্ধুদের বেতন ৬০০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে করা হবে ৮,৪০০ টাকা আর ৪০% বেতন বৃদ্ধি করা হবে সর্বশিক্ষা মিশনের কর্মীদের। রাজ্য সরকারের এই বেতন বৃদ্ধির ঘোষণাকেই ভাঁওতা বলে অভিযোগ তুললেন শিক্ষাবন্ধুরা।

শিক্ষাবন্ধু ঐক্য মঞ্চের রাজ্য সহসভাপতি নন্দদুলাল দাসের বক্তব্য,রাজ্যসরকারে তাঁদের সঙ্গে প্রতারণা করছে। নির্দেশিকা অনুযায়ী,সর্বশিক্ষা মিশনের গ্রুপ ডি কর্মী (অষ্টম শ্রেণি পাশ) পাবেন ১৫ হাজার টাকা, গ্রুপ সি (টুয়েলভ পাশ) পাবেন ১৯ হাজার টাকা, স্নাতকরা পাবেন ২৫ হাজার টাকা ও পোস্ট গ্রাজুয়েটরা পাবেন ২৯ হাজার টাকা। অথচ পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিগ্রিধারী শিক্ষাবন্ধুরা পাবেন মাসে মাত্র ৮ হাজার টাকা। ছেড়েকেটে  হাতে আসবে মাত্র সাড়ে ৬ হাজার টাকা। এটাই ব্যাপক আপত্তি শিক্ষাবন্ধুদের।

প্রসঙ্গত,চলতি মাসেই পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের এই বেতন বৃদ্ধির ঘোষণার পর বেতন বৈষম্যের অভিযোগ তুলে প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন শিক্ষাবন্ধুরা। তাঁদের মতে,যে হারে রাজ্যসরকার বেতন বৃদ্ধি করেছে তাতে সর্বশিক্ষা মিশনের কর্মীদের সঙ্গে শিক্ষাবন্ধুদের বেতনের বৈষম্য তৈরি করা হয়েছে। শিক্ষাবন্ধুদের ন্যূনতম বেতন ২৫,০০০ করা হোক,এমনটাই দাবী ছিল তাঁদের। এই দাবী অবিলম্বে কার্যকর করা হোক,এই দাবীতেই মিছিলে নেমেছিল হাজার হাজার শিক্ষাবন্ধুরা।

কিন্তু রাজ্যসরকারের তরফ থেকে কোনো সাড়া না পেয়ে ধৈর্য্য হারিয়ে ফেলে শিক্ষাবন্ধুরা। তাঁরা আশা করেছিল,লোকসভা ভোটের মুখে দাঁড়িয়ে হয়তো রাজ্যসরকার তাঁদের দাবী মেনে নেবে। কিন্তু রাজ্যসরকারের গয়ংগচ্ছ মনোভাব তাঁদের হতাশ করল। তবে এবার আর ঘর চুপ করতে বসে থাকতে চায় না তাঁরা। রাজ্যসরকারে বারবার বলেও যখন দাবী আদায় করা যাচ্ছে না তখম এর বিকল্প পথ হিসাবে আরো উপরমহলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিল তাঁরা।

রাজ্যসরকারে বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ তুলে এবার দিল্লি পাড়ি দিতে চায় শিক্ষাবন্ধুরা। প্রধানমন্ত্রী এবং রাষ্ট্রপতির কাছে তাঁদের দাবীদাওয়াগুলো জানানোর সিদ্ধান্ত নিলেন তাঁরা। শুধু তাই নয়,মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায়ে ব্রিগেডে যে ভীন রাজ্যের নেতাদের এনে সভা করালেন তাঁদেরও চিঠি দিয়ে শিক্ষাবন্ধুদের প্রতি রাজ্যসরকারের বঞ্চনার কথা তুলে ধরারও কথা জানালেন নন্দদুলাল বাবু।

Top
error: Content is protected !!