এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ

সোশ্যাল মিডিয়ায় তৃণমূল বিধায়কের আক্ষেপ, বিজেপি যোগের জল্পনা তুঙ্গে

লোকসভা ভোটে রাজ্যের বেশিরভাগ জেলায় তৃণমূলের ভরাডুবি হওয়ার পাশাপাশি কোচবিহারেও তৃণমূলের হার অত্যন্ত লক্ষণীয়। যেখানে পরেশ অধিকারীকে তৃণমূল নেত্রী প্রার্থী করে জেতানোর কথা বললেও প্রাক্তন যুব তৃণমূল নেতা তথা বর্তমান বিজেপি নেতা নিশীথ প্রামাণিক এই কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রে দাঁড়িয়ে জয়লাভ করেন। আর ফলাফল পর্যালোচনায় দেখা যায় যে কোচবিহারের বেশিরভাগ বিধানসভাতেই

এবার তৃণমূলের হাতছাড়া হতে চলেছে এই জেলা পরিষদ, অস্বস্তি ক্রমশ বাড়ছে

লোকসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর থেকেই রাজ্যের তৃণমূলের ভরাডুবি এবং বিজেপির উত্থানের পর একের পর এক পৌরসভার কাউন্সিলর এবং বিধানসভার বিধায়করা বিজেপিতে যোগদান করতে শুরু করেন। যার জেরে রাজ্যের অনেক বিধানসভা এবং অনেক পৌরসভাতেই গেরুয়া রং লেগে যায়। কিন্তু এবার শাসকদলের অস্বস্তিকে প্রবলভাবে বাড়িয়ে দিয়ে তৃণমূল পরিচালিত দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদকে

দলের নেতাদের ডানা ছেঁটে মুকুল ঘনিষ্ঠদের উপর ক্রমশ আস্থা রাখছে তৃণমূল নেতৃত্ব, জোর শোরগোল দলের অন্দরেই

লোকসভা ভোটের অনেক আগেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন বর্তমানে বঙ্গ বিজেপির হেভিওয়েট নেতা মুকুল রায়। আর তারপরই তার হাত ধরেই এবারের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি বাংলায় 18 টি আসন পেয়েছে বলে দাবি রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের। অন্যদিকে প্রাক্তন সৈনিক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘুম উড়িয়ে দিয়েছে বলেও মনে করছেন অনেকে। কিন্তু যে মুকুল রায়কে বেইমানি

আজকেই কি বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা, জোর জল্পনা

অবশেষে কি আজই সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটতে চলেছে! নিজের হাতে তৃণমূলকে সাজিয়ে তোলা দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার সাংগঠনিক রূপকার বিপ্লব মিত্র কি অবশেষে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাতে চলেছেন! সূত্রের খবর, আর কিছুসময়ের মধ্যে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের প্রাক্তন সভাপতি তথা বর্তমান তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা বিপ্লব মিত্র নিজের হাতে গেরুয়া শিবিরের পতাকা

ওপিনিয়ন পোল – বাকি থাকা পুরভোট – এই মুহূর্তে ভোট হলে কি হবে হলদিবাড়ি পুরসভার চিত্র?

ওপিনিয়ন ও এক্সিট পোল নিয়ে আমরা ২০১০ সাল থেকেই কাজ করছি। জনসমক্ষে আমাদের প্রথম আত্মপ্রকাশ ২০১৪ সালে। ২০১৪, ২০১৬, ২০১৯-এর তুমুল সাফল্যের পর পাঠক বন্ধুদের অনুরোধে আবার আমরা শুরু করলাম আমাদের পরবর্তী পর্যায়ের ওপিনিয়ন পোল। এবার আমাদের লক্ষ্য পুরভোট - রাজ্যের ১৭ টি পুরসভার নির্বাচন বাকি, কিন্তু রাজ্য সরকার সেখানে প্রশাসক

তৃণমূল ছেড়ে এবার বিপ্লবের কি বিজেপিতে অভিষেক পাকা ! জোর জল্পনা

লোকসভা ভোটে বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষকে নির্বাচনী বৈতরণী পার করার দায়িত্ব ছিল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের প্রাক্তন সভাপতি বিপ্লব মিত্রের কাঁধে।কিন্তু তিনি তার দায়িত্ব ঠিকমতো পালন না করায় বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্র তৃণমূলের হাতছাড়া হয়েছে অভিযোগ তুলে পরাজিত অর্পিতা ঘোষ সরব হয়েছিলেন। যার ফলে লোকসভা ভোটের ফলাফল পর্যালোচনা

কাঠমানি খাওয়া নেতাদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি উঠল দলের অন্দরেই, অস্বস্তি বাড়ছে

লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের খারাপ ফলাফলের পেছনে ঠিক কি কারণ রয়েছে তা নিয়ে পর্যালোচনা বৈঠক হয়েছিল। সেখানে বাংলায় বিজেপির উত্থান যেমন কারণের তালিকায় ছিল, ঠিক তেমনই দলীয় নেতাদের একাংশের দুর্নীতি এবং কাঠমানি খাওয়াটা যে সাধারণ মানুষ ভালোমত মেনে নিতে পারেননি তাও রিপোর্টে উঠে এসেছিল। আর এই পরিস্থিতিতে সামনের বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির

“বয়স্ক” শব্দতেই তুলকালাম কান্ড পুরসভায়, জেনে নিন

রাজ্য রাজনীতিতে দলবদলের হিড়িক নিয়ে যখন উত্তাল সর্বত্র, ঠিক তখনই "বয়স্ক" শব্দ প্রয়োগ নিয়ে রীতিমত তুলকালাম হতে দেখা গেল শিলিগুড়ি পৌরসভাকে। সূত্রের খবর, সোমবার শিলিগুড়ি পৌরসভায় বাজেট নিয়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছিল। আর সেই বৈঠকেই আলোচনার সময় বিরোধী দল তৃণমূলের 37 নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর রঞ্জন শীলশর্মা মেয়র অশোক ভট্টাচার্যকে "বয়স্ক"

ফের আরও এক পঞ্চায়েত সমিতির দখল নিল বিজেপি, অস্বস্তিতে তৃণমূল

লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল নেত্রী 42 এ 42 টি আসন দখল করার স্লোগান দিলেও রাজ্যে বিজেপির উত্থানে ধ্বস নেমেছে শাসক দলের ভোটব্যাঙ্কে। মোটে 22 টি আসন তৃনমুল তাদের ঝুলিতে পুড়লেও বিজেপি 18 টি আসন নিজেদের দখলে রেখে শাসকদলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলতে শুরু করেছে। আর লোকসভায় বিজেপির এই অভাবনীয় ফলাফলের পরই দিকে দিকে

বিজেপিতে যোগ দিতে যাচ্ছেন শাসকদলের হেভিওয়েট প্রাক্তন সভাপতি, জোর জল্পনা

উত্তরবঙ্গের তৃণমূলের সেফসিট হিসেবে পরিচিত বালুরঘাট লোকসভা আসনে এবার পরাজয় স্বীকার করে নিতে হয়েছে সেখানকার তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষকে। আর হেরে যাবার পরই বালুরঘাটের প্রার্থী অর্পিতা ঘোষের এই হারের পেছনে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল সভাপতি বিপ্লব মিত্র ও তার অনুগামীদের একাংশের হাত রয়েছে বলে দাবি করতে থাকেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অনেকেই। আর

Top
error: Content is protected !!